হাইপোগ্লাইসেমিয়া

হাইপোগ্লাইসেমিয়াঃ রক্তের শর্করার পরিমান কমানোর জন্য ডায়াবেটিক রোগীকে ট্যাবলেট বা ইনসুলিন দেয়া হয়ে থাকে। প্রয়োজনের থকে অতিরিক্ত ট্যাবলেট খাওয়া বা ইনসুলিন নেয়া অথবা হটাৎ করে খাওয়াদাওয়া অনেক কমিয়ে ফেলা অথবা অতিরিক্ত শারিরিক পরিশ্রমের কাজ করার ফলে মাঝে মাঝে রক্তের সুগার বেশি কমে যেতে পারে। এই ঘটনাকে বলা হয় হাইপোগ্লাইসেমিয়া। 
রক্তের সুগার কতো কমে গেলে সেটি হাইপোগ্লাইসেমিয়া
-       রক্তের সুগার ৩.৯মিমোল/লিটার এর নিচে কমে গেলে সেটিকে হাইপোগ্লাইসেমিয়া হিসাবে চিহ্নিত করা হয়ে থাকে। 


নিজের রক্তের সুগার পরিমাপ করুন

 হাইপোগ্লাইসেমিয়ার লক্ষনসমূহঃ
-       ১) অসুস্থ বোধ করা
-       ২) খুব বেশি খিদে পাওয়া
-       ৩) বুক ধড়ফড় করা
-       ৪) হটাৎ করে শরীর ঘেমে যাওয়া
-       ৫) শরীর কাঁপতে থাকা
-       ৬) শরীর এবং মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলা
-       ৭) অজ্ঞান হয়ে যাওয়া।

 হাইপোগ্লাইসেমিয়ার লক্ষন প্রকাশ পেলে করনীয়ঃ
এই ক্ষেত্রে সম্ভব হলে দ্রত গ্লুকমিটার দিয়ে রক্তের সুগার পরিমাপ করে দেখতে হবে সেটি আসলেই হাইপোগ্লাইসেমিয়া কি না। হাতের কাছে গ্লুকমিটার না পাওয়া গেলে প্রমান ছাড়াই হাইপোগ্লাইসেমিয়ার চিকিৎসা করতে হবে।
·         রোগীর জ্ঞান থাকলে এবং রোগী মুখে খেতে পারলে রোগী/পরিবারের সদস্য চা চামচে ৪-৮ চা চামচ চিনি/গ্লুকোজ এক গ্লাস পানিতে গুলে খেয়ে নিবেন/খাইয়ে দিবেন।
·         রোগী অজ্ঞান হয়ে গেলে গ্লুকোজ ইনজেকশন হিসাবে রক্তের শিরায় দেবার জন্য দ্রুত নিকটস্থ হাসপাতালে যোগাযোগ করবেন।

কোন মন্তব্য নেই:

এক নজরে...



ডাঃ লালা সৌরভ দাস

এমবিবিএস, ডিইএম (বারডেম)

ডায়াবেটিস, থাইরয়েড এবং হরমোন বিশেষজ্ঞ (এন্ডোক্রাইনোলজিস্ট)

কনসালটেন্ট, ওয়েসিস হাসপাতাল, সিলেট

প্রাক্তন মেডিকেল অফিসার, সিলেট ডায়াবেটিক হাসপাতাল

মেম্বার অফ বাংলাদেশ এন্ডোক্রাইন সোসাইটি

মেম্বার অফ আমেরিকান এ্যাসোসিয়েশন অফ ক্লিনিকাল এন্ডোক্রাইনোলজিস্ট



Subscribe

Recommend on Google

Recent Posts